কলেজ হোস্টেলে পাপিয়ার ‘বিশেষ রুমে’ যা হতো

নরসিংদী যুব মহিলা লীগের সদ্য বহিষ্কৃত নেত্রী শামীমা নূর পাপিয়া গ্রেপ্তারের পর স্থানীয়রাও তার বি’রুদ্ধে মুখ খুলেছে।একের পর এক ফাঁস হচ্ছে তার যাবতীয় কুকীর্তি।

নরসিংদীবাসী বলছে, জে’লার সরকারি কলেজে লেখাপড়া করার সময় সেখানকার ছাত্রী হোস্টেলেও ‘বিশেষ রুম’ গড়ে তুলেছিলেন এই পাপিয়া।

২০০৬ সালের দিকে নরসিংদী সরকারি কলেজে প্রথম ছাত্রী হোস্টেল উদ্বোধন হয়। ওই সময় হোস্টেলের একটি কক্ষ নিজের দখলে নেন পাপিয়া। সেখানে অনেক বহিরাগত ছাত্রীর যাতায়াত ছিল। কোনও কোনও ছাত্রীকে প্রলোভন ও চাপ দিয়ে ওই সময় খারাপ পথে নিয়েছিলেন পাপিয়া। কলেজ হোস্টেলের ওই রুমেই ছাত্রীদের নিয়ে অ’পকর্ম চালাতেন তিনি।

ছাত্রী হোস্টেল হলেও সেখানে নিজের দাপট দেখিয়ে ছেলেদেরও প্রবেশ করাতেন তিনি। তখনও স্থানীয় অনেকে পাপিয়ার এসব কর্মকাণ্ডের ব্যাপারে অবগত ছিলেন। কিন্তু কেউই মুখ খোলেননি।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সূত্র জানায়, নরসিংদী সরকারি কলেজেই সুমনের সঙ্গে পরিচয় হয় পাপিয়ার। পরিচয় হওয়ার পর তারা ঘনিষ্ঠ হতে থাকেন। বন্ধু থেকে একপর্যায়ে সুমনের প্রেমিকা হন পাপিয়া। পরে তারা বিয়েও করেন।

সুমনের হাত ধরে রঙিন দুনিয়ার সঙ্গে পরিচয় শুরু হয় পাপিয়ার। কলেজের সাধারণ ছাত্রী হয়েও সুমনের মাধ্যমে প্রথমে নরসিংদীর স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গে পরিচয় হয় তার।

বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে স্থানীয় অনেক রাজনৈতিক নেতা পাপিয়াকে তাদের কাজে ব্যবহার করতে শুরু করেন। সেখান থেকেই শুরু হয় পাপিয়ার বেপরোয়া জীবন।

বন্ধু থেকে প্রেমিক, প্রেমিক থেকে স্বামী সুমনের হাত ধরে পাপিয়ার উত্থান হলেও একপর্যায়ে প্রভাব-প্রতিপত্তি আর ক্ষমতায় সুমনকেও ছাড়িয়ে যান পাপিয়া।

কিন্তু একটা পর্যায়ে এসে তাকে থামতেই হলো। ধ’রা পড়তেই হলো আইনশৃংখলা বাহিনীর হাতে।