গণধর্ষণের ভিডিও ৩০০ রুপিতে বিক্রি!

চলতি মাসেই ভারতের উত্তরপ্রদেশের বদায়ুঁতে গণধর্ষণের ঘটনা ঘটেছিল। ধর্ষণের পরে নির্যাতিতার যৌনাঙ্গে রড ঢুকিয়ে দেওয়া হলে সেখানেই তিনি মারা যান। ফের সেই বদায়ুঁতেই প্রকাশ্যে এল আরও এক গণধর্ষণের ঘটনা।

সেখানে ৩২ বছরের এক নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে ছয়জনের বিরুদ্ধে। তাদের মধ্যে পাঁচজনই অপ্রাপ্ত বয়স্ক। ধর্ষণের ঘটনা ঘটে পাঁচ মাস আগে। তবে সম্প্রতি ধর্ষণের ভিডিও ভাইরাল হওয়ার তা প্রকাশ্যে আসে।

এরপর বৃহস্পতিবার পুলিশে অভিযোগ করেন নির্যাতিতা। সেদিন রাতেই অভিযুক্তদের গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারদের পুলিশ হেফাজতে রাখা হয়েছে।
ভারতীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, নির্যাতিতা জানিয়েছেন- তিনি জঙ্গলে কাঠ সংগ্রহ করতে গিয়েছিলেন। তখনই তার ওপরে চড়াও হয় অভিযুক্তরা। সেখানেই পাঁচজন তাকে ধর্ষণ করে। একজন গোটা ঘটনা মোবাইলে ভিডিও করে। ধর্ষণের পরে অভিযুক্তরা ওই নারীকে হুমকি দিয়ে বলে, মুখ খুললেই ভিডিওটি ভাইরাল করে দেওয়া হবে। সেই সঙ্গে তার স্বামী ও সন্তানদের মেরে ফেলা হবে।

পরে ওই নারী প্রাথমিকভাবে কাউকে কিছু বলেননি। কিন্তু পাঁচ মাস পর ভাইরাল হয়ে গেল ধর্ষণের সেই ভিডিও।

পুলিশ জানিয়েছে, এক অভিযুক্ত ভিডিওটি ৩০০ রুপির (বাংলাদেশি মুদ্রায় ৩৪৮ টাকা) বিনিময়ে একজনকে বিক্রি করেছিল। সেখান থেকেই ক্রমে ছড়িয়ে পড়ে সেই ভিডিও।

বদায়ুঁর পুলিশ সুপারিন্টেন্ডেন্ট সংকল্প শর্মা জানিয়েছেন, পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ করারও প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি।