চাকরির খোঁজে একসঙ্গে ঘর ছাড়ে সেই চার ছাত্রী

পরিবারের সঙ্গে অভিমান করে চাকরির খোঁজে কাউকে কিছু না বলেই একসঙ্গে নিরুদ্দেশ হয় ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলার পূর্ব বাখাই গ্রামের দুই সহোদরসহ চার ছাত্রী। টানা তিনদিন জেলা গোয়েন্দা শাখা ও ফুলপুর থানা পুলিশের যৌথ অভিযানে নিখোঁজের ৫ দিন পর বুধবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) রাত সাড়ে ৯ টার দিকে গাজীপুরের শ্রীপুর থেকে তাদেরকে উদ্ধার করা হয়।

উদ্ধারকৃতরা হলেন, এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী হাফসা খাতুন, তার সহোদর ছোট বোন কওমি মাদরাসার ছাত্রী সুমাইয়া, তাদের চাচাতো বোন এইচএসসি প্রথম বর্ষের ছাত্রী সানজিদা খাতুন ও প্রতিবেশী এইচএসসি প্রথম বর্ষের ছাত্রী মিফতাহুল জান্নাত ইশাত।

জিজ্ঞাসাবাদে ওই চার ছাত্রীর বক্তব্যের বরাত দিয়ে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ কামাল আকন্দ বার্তা২৪.কম-কে বলেন, তারা সবসময় একসঙ্গেই চলাফেরা করতো। কিছুদিন আগে একটি অনুষ্ঠানে তাদের অভিভাবকরা তাদেরকে বকাঝকা ও মারধর করে। এদিকে তাদের পরিবারে আর্থিক অসচ্ছল থাকায় পড়াশোনার খরচ চালাতে অভিভাবকদের কষ্ট হত।

সেই অভিমান থেকে তারা একসঙ্গে মিলে গত শনিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) স্ব-স্ব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যাওয়ার কথা বলে কাউকে না জানিয়ে গাজীপুর চলে যায়। সেখান থেকে তারা শ্রীপুর উপজেলার বেতজুড়ি গ্রামে দু:সম্পর্কের আত্মীয়ের বাড়িতে উঠে। ওই বাড়িতে থেকে তাদের চাকরি করার পরিকল্পনা ছিল।’

এদিকে ওইদিন সন্ধ্যা হয়ে গেলেও তারা বাড়ি না ফেরায় খোঁজাখুঁজি শুরু করে তাদের পরিবার। অনেক খোঁজাখুঁজি করে কোথাও না পেয়ে একদিন পর সোমবার ফুলপুর থানায় সাধারণ ডায়েরি করে তাদের অভিভাবকরা। এরপর জেলা পুলিশ সুপার মো. আহমার উজ্জামানের নির্দেশে ওইদিন থেকেই যৌথভাবে উদ্ধার অভিযানে নামে ডিবি ও থানা পুলিশ।

টানা তিনদিন যৌথ টিম বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে বুধবার রাতে শ্রীপুর উপজেলার বেতজুড়ি গ্রাম থেকে ওই চারজনকে উদ্ধার করে ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে আসে। বৃহস্পতিবার উদ্ধারকৃতদের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলে জানিয়েছেন ডিবির ওসি শাহ কামাল আকন্দ।