ভারত সরকারের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে যাচ্ছেন সেই বাংলাদেশি ছাত্রী

অপ্সরা আনিকা মীম, ভারতের সনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয় বিশ্বভারতীর একজন শিক্ষার্থী। সম্প্রতি তাকে ভারত ছেড়ে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছে দেশটির সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

জানা গেছে, ভারতে চলমান বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধন আইন (সিএএ) বিরোধী বিক্ষোভের কিছু ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করেছিলেন তিনি। এরপরই অপ্সরার বিরুদ্ধে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারতের ফরেনার্স রিজিয়নাল রেজিস্ট্রেশন অফিসার (এফআরআরও) কর্ম শেরিং ভুটিয়া নোটিশ পাওয়ার ১৫ দিনের মধ্যে তাকে ভারত ছেড়ে যাওয়ার নির্দেশ দেন।
তবে ভারতে বৈধভাবে অবস্থান করার আইনগত সব পথ খুঁজছেন অপ্সরা। তিনি তার বিরুদ্ধে জারি করা ওই নোটিশের বিরুদ্ধে আর্জি নিয়ে ভারতের হাইকোর্টে আবেদন করার পরিকল্পনা করছেন। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়া’র।

এতে বলা হয়েছে, ভারতে অবস্থানরত বাংলাদেশি একজন কর্মকর্তা বলেছেন, যদি অপ্সরা শর্তহীন ক্ষমা প্রার্থনার জন্য প্রস্তুত থাকেন, শুধু তাহলেই ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা তাকে সাহায্য করতে পারেন। তিনি আরও বলেন, তিনি যদি অতিরিক্ত সময় ভারতে অবস্থান করেন তাহলে তাকে জরিমানা করা হতে পারে।

এ বিষয়ে আইনজীবী শামীম আহমেদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন অপ্সরা। শামীম আহমেদ বলেছেন, নোটিশ পাওয়ার পর অপ্সরার এখনও এক সপ্তাহ সময় পার হয়নি। তিনি এই আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করার কথা বিবেচনা করছেন। তবে একজন কর্মকর্তা বলেছেন, যেহেতু ওই নির্দেশ তাকে দিয়েছে ‘তৃতীয় পক্ষ’ তাই এফআরআরও’র এমন ক্ষমতা আছে যে, তারা ভারতের নিয়মনীতি লঙ্ঘনের জন্য বিদেশিদের বিরুদ্ধে ক্ষমতা ব্যবহার করতে পারে। ফলে অপ্সরার জন্য উত্তম হবে বাংলাদেশে ফেরত গিয়ে আপিল করা। কারণ, আপিল করলেও তার শুনানিতে সময় লাগবে।