যৌথ বাহিনীর সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ শিবির কর্মী নিহত

নোয়াখালী বেগমগঞ্জ উপজেলায় পুলিশ ও গোয়েন্দা পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এক শিবির কর্মী নিহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার ভোরে উপজেলার আমানউল্যাপুর ইউনিয়নের জনকল্যাণ মাঠে এই বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।

নিহত ব্যক্তির নাম নজরুল (২৫) ওরফে কানা নজরুল। তিনি উপজেলার অভিরামপুর গ্রামের মৃত আব্দুল হাকিমের ছেলে এবং পিয়াস বাহিনীর সেকেন্ড ইন কমাণ্ড।

নিহত কানা নজরুলের বিরুদ্ধে সাম্প্রতিক রাকিব হত্যা মামলাসহ তিনটি মামলা রয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশের ছয় সদস্য আহত হয়েছেন।

পুলিশের দাবি ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, পিস্তলের তিন রাউন্ড গুলি, একটি লোহার তৈরি ধামা, তিনটি ছোরা ও পাঁচটি কার্তুজের খোসা উদ্ধার করা হয়েছে।

জানা যায়, মঙ্গলবার ভোরে বেগমগঞ্জ উপজেলার আমানউল্যাপুর ইউনিয়নের জনকল্যাণ মাঠে পুলিশ ও গোয়েন্দা পুলিশের একটি যৌথ দল অভিযানে যায়। এ সময় শিবির ক্যাডার পিয়াস বাহিনী ও তার দল পুলিশের ওপর অতর্কিত হামলা ও গুলি ছোড়ে। পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছোড়ে। একপর্যায়ে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে গেলে ঘটনাস্থলে নজরুলকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়।

পরে তাকে উদ্ধার করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের আরএমও ডা. সৈয়দ মোহাম্মদ আনোয়ারুল আজিম আরটিভি অনলাইনকে জানান, হাসপাতালে আনার আগেই অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে নজরুল নামের ওই ব্যক্তি মারা যান।