রংপুরে তরুণী’র লাশ উদ্ধারের ঘটনায় প্রেমিক গ্রেফতার

রংপুর সদরের মমিনপুরের মিলের পাড়ের শাখা তিস্তা শেষ ক্যানেল থেকে রুমাইয়া আক্তার আক্তার রুমির লাশ উদ্ধারের ঘটনায় তার প্রেমিক আরিফুল ইসলাম আরিফ কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
বুধবার গাজীপুরের বাহেরা চালা নতুন বাজার শ্রীপুর হতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। শুক্রবার আদালতের মাধ্যমে তার রিমান্ড চাওয়া হবে।

বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে দশটায় এক ব্রিফিংয়ে রংপুর পুলিশ সুপার বিপ্লব কুমার সরকার জানান, গ্রেফতারকৃত আরিফুল ইসলাম আরিফ এর সাথে রুমির প্রেমের সম্পর্ক ছিল। পরবর্তীতে আরিফ বিয়ে করলেও রুমির সাথে সম্পর্ক থেকে যায়। আরিফ ঢাকায় একটি গার্মেন্টসে চাকরি করতো। প্রেমের সম্পর্কের সূত্র ধরে আরিফ ১৩ ফেব্রুয়ারি রংপুর আসে এবং ১৫ ই ফেব্রুয়ারি দুপুরে আরিফ রুমি কে দাওয়াত দিয়ে মমিনপুরের তার বোনের বাড়িতে নিয়ে আসে। সেখানে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে আরিফ তাকে ওড়না পেঁচিয়ে হত্যা করে। রাতে আরিফ তার ছোট শ্যালক হযরতের সহায়তায় লাশ বস্তাবন্দী করে সাইকেল দিয়ে গুম করার জন্য তিস্তা সেচ ক্যানেলে ফেলে দেয়।

পুলিশ সুপার আরও জানান হত্যাকাণ্ডের প্রধান অভিযুক্ত আরিফুল ইসলাম আরিফ তাকে শুক্রবার আদালতের মাধ্যমে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ডের আবেদন করা হবে এছাড়াও তার শ্যালক হযরতকে গ্রেপ্তারে সাঁড়াশি অভিযান চলছে।

গত রোববার সকালে তিস্তা সেচ ক্যানেলের পাশ থেকে ওই তরুণীর লাশ উদ্ধার করা হয়। রুমি দিনাজপুরের ফুলবাড়ী সরকারি কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী ছিল। তার বাড়ি বদরগঞ্জ পৌরসভা মুন্সিপাড়ায়।

এ ঘটনায় তার ভাই বেলাল হোসেন বাদী হয়ে অজ্ঞাত দের আসামি করে একটি মামলা করেছে। ওই মামলায় উজ্জ্বল নামে আরেক প্রেমিক কে মঙ্গলবার গ্রেপ্তার করে পুলিশ।