রাজধানীতে ফুটপাতে উঠে ১৪ জনকে চাপা দিল একটি প্রাইভেট কার

ঢাকার কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সামনে প্রাইভেট কারের চাপায় পাঁচজন নারী ও তিনজন শিশুসহ মোট ১৪ জন পথচারী আহত হয়েছেন। পুলিশ জানিয়েছে এদের মধ্যে চারজনের অবস্থা গুরুতর।

আহতদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনায় প্রাইভেটকার এবং এর চালক আটক রয়েছে।

দুর্ঘটনাটি যেখানে ঘটেছে, তার কাছেই দুই বছর আগে অর্থাৎ ২০১৮ সালের ২৯শে জুলাই একটি বেপরোয়া বাসের চাপায় শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থী নিহত হয়েছিল।

সেই ঘটনার প্রতিবাদে সারাদেশে ছাত্রবিক্ষোভ গড়ে উঠেছিল।

ক্যান্টনমেন্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কাজী সাহান হক মিডিয়াকে জানিয়েছেন, দুপুর পৌনে বারোটার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

আজ যেখানে দুর্ঘটনাটি ঘটেছে, তার কাছেই বছর দুয়েক আগে আরেক দুর্ঘটনায় দুজন কলেজ শিক্ষার্থী নিহত হয়, ওই দুর্ঘটনার ফলে সারা বাংলাদেশে নিরাপদ সড়ক দাবিতে ছাত্র আন্দোলন গড়ে ওঠে। আহতদের সবাই কুর্মিটোলা হাসপাতালের সামনে বাসের জন্য দাঁড়িয়ে ছিলেন বলে পুলিশের ধারণা।

মি. হক বলেন, দ্রুত গতিতে আসা একটি প্রাইভেটকার ফুটপাত ঘেঁষে দাঁড়িয়ে থাকা একটি সিএনজিকে ধাক্কা দেয়, এবং এর পেছনেই একটি বাস ছিল।

প্রাইভেটকার সিএনজিকে ধাক্কা দিলে সেটি ফুটপাতের একটি অংশ ভেঙ্গে যাত্রীদের ওপর উঠে পড়ে। এতে মোট ১৪ জন আহত হয়। আহতদের উদ্ধার করে শুরুতে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়।

প্রাইভেট কারের চাপায় একসঙ্গে এতজন মানুষ আহত হবার ঘটনাটিকে বেশ অস্বাভাবিক বলে মন্তব্য করেছেন মি. হক।

সুত্রঃ বিবিসি