স্ত্রীকে ভালোবাসুন, পাশের বাড়ির স্ত্রীও প্রেমে পড়বে

ভালোবাসা প্রকাশে নাকি কখনোই দেরি করতে হয় না। আর ভালোবাসা ছড়িয়ে দিলেই ভালোবাসা মেলে—এমন মত অনেকের। স্ত্রীর প্রতি ভালোবাসা প্রকাশে তো বাধা নেই বললেই চলে। সে সুযোগ কে-ই বা হাতছাড়া করতে চায়? তবে সংকোচে অনেকেই তা প্রকাশ না করলেও সে পথে না হেঁটে স্ত্রীর প্রতি বাড়বাড়ন্ত ভালোবাসা প্রকাশে বরাবরই সচেষ্ট বলিউডের এ সময়ের জনপ্রিয় অভিনেতা আয়ুষ্মান খুরানা। আর স্ত্রীকে ভালোবাসতে যাঁরা সংকোচ করেন, তাঁদের জন্য পরামর্শও রয়েছে তাঁর।

হিন্দুস্তান টাইমসের প্রতিবেদনে জানা যায়, স্ত্রী লেখিকা ও চলচ্চিত্র নির্মাতা তাহিরা কাশ্যপকে ভীষণ ভালোবাসেন আয়ুষ্মান। এ কথা তাহিরা যেমন জানেন, তেমনি আয়ুষ্মানের ভক্ত-অনুরাগীদেরও অজানা নয়।

২০১২ সালে আয়ুষ্মান-তাহিরার ঘরে আসে প্রথম সন্তান বিরাজবীর। ওই বছরেই বলিউডে অভিষেক হয় আয়ুষ্মানের। বিয়ের কথা লুকিয়ে বলিউডে আসেন অনেকেই। তবে সেই পথে হাঁটেননি আয়ুষ্মান।

গতকাল শনিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) ‘হিন্দুস্তান শিখর সমাগম ২০২০’-এ হাজির হয়েছিলেন আয়ুষ্মান। সেখানেই তাঁকে প্রশ্ন করা হয়, কেন তিনি বিয়ের কথা গোপন রাখলেন না? উত্তরে রসিকতা করার সুযোগটুকু হাতছাড়া করলেন না তিনি। সেইসঙ্গে স্ত্রীকে নিয়ে লুকোচুরি করা যে তাঁর একদমই পছন্দ নয়, তা-ও বুঝিয়ে দিলেন কথার মারপ্যাঁচে। আয়ুষ্মান বলেন, ‘স্ত্রীকে এতটা ভালোবাসুন, যাতে প্রতিবেশীর স্ত্রীরা আপনার প্রেমে পড়ে।’

আয়ুষ্মান আরো বলেন, ‘সময় বদলেছে। আগে অভিনেতাদের জীবনকে ঘিরে নানা রহস্য থাকত। তারকাখ্যাতির ট্রেন্ড অচিরেই শেষ হবে। এখন কনটেন্টই (আধেয়) রাজা।’

স্ত্রীর প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ করেই ক্ষান্ত থাকেন না আয়ুষ্মান, স্ত্রীর পাশে থাকেন ভরসার হাত নিয়ে। তাহিরা এক বছরেরও বেশি সময় ধরে স্তন ক্যানসারের সঙ্গে লড়াই করে যাচ্ছেন। স্ত্রীকে নিজের জীবনের অনুপ্রেরণা হিসেবে মানেন আয়ুষ্মান। তিনি বলেন, ‘তাহিরা কেবল আমার জীবনসঙ্গী নন, তিনি আমার জীবনের পথপ্রদর্শক। কলেজে পড়াকালে আমি যখন থিয়েটার নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করতাম, তখন সে আমাকে পড়াত।’

আয়ুষ্মান অভিনীত ছবি ‘শুভ মঙ্গল জিয়াদা সাবধান’ গত শুক্রবার (২১ ফেব্রুয়ারি) মুক্তি পেয়েছে। বক্স অফিসে ভালোই ব্যবসা করছে ছবিটি। দুদিনে আয় করেছে ২০ কোটি রুপির বেশি। এতে আরো অভিনয় করেছেন নীনা গুপ্ত, গজরাও রাও, মানবী গাগরু, মনুঋষি চাধাসহ অন্যরা।